• সোমবার   ২৬ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১০ ১৪২৭

  • || ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

৩২

বিশ্বব্যাংক গ্রুপ ২০ হাজার কোটি টাকার বাজেট সহায়তা দিচ্ছে

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০  

বিশ্বব্যাংক গ্রুপের কাছ থেকে এবার প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার বাজেট সহায়তা পাওয়া যাবে। করোনা মোকাবেলাসহ যেকোন খাতে এই অর্থ সরকার সহজে ব্যয় করতে পারবে। বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সাধারণ সভায় সংস্থাটি বাংলাদেশকে প্রায় ২৩০ কোটি ডলার, বাংলাদেশী মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা সহায়তার ঘোষণা দিতে যাচ্ছে। আগামী ১২ থেকে ১৮ অক্টোবর সংস্থাটির বার্ষিক সভা র্ভাচুয়ালি অনুষ্ঠিত হবে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নের জন্য এই অর্থ ব্যয় করা হবে। এতে করে করোনা সঙ্কটের মধ্যেও বাজেট বাস্তবায়ন বেশভাবে ভালভাবে সম্ভব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নয়ন সহযোগী বা দাতাদের কাছ থেকে প্রকল্প সহায়তার চেয়ে বাজেট সহায়তা পেতে সরকার বেশি আগ্রহী। প্রকল্পের অর্থ সঠিক সময়ে ব্যয় করতে না পারলে এর অর্থায়ন নিয়ে নানা জটিলতা তৈরি। এছাড়া বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে অনেক প্রকল্প সঠিক সময়ে ব্যয় করাও সম্ভব হচ্ছে না। প্রকল্পের সময় বাড়ানো হচ্ছে। এ অবস্থায় বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকসহ (এআইআইবি) বিভিন্ন দাতাসংস্থার কাছে মোট ২৩০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা চাওয়া হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে ইতোমধ্যে সরকারের অগ্রাধিকারও পরিবর্তন হয়েছে। করোনা মোকাবেলা, কর্মসংস্থান, দারিদ্র্য হ্রাস এবং বিনিয়োগ বাড়ানোর মতো কর্মসূচীকে প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে।

এদিকে বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সভা সামনে রেখে এ সংক্রান্ত একটি বিশদ প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারের বৈঠকটি ভার্চুয়ালি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্বব্যাংক কর্তৃপক্ষ। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সচিবরা বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে বার্ষিক সভায় সংযুক্ত হবেন। অর্থ মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ, মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ ও ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সভা সামনে রেখে কাজকর্ম শুরু করেছে। মূল লক্ষ্য, করোনা মোকাবেলায় বিশ্বব্যাংক গ্রুপের কাছ থেকে বড় সহায়তা আদায় করা। এ প্রসঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আজিজুল আলম জনকণ্ঠকে বলেন, বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সাধারণ সভায় ২ বিলিয়ন ডলারের বেশি পরিমাণ অর্থ বাজেট সহায়তা চাওয়া হবে। বাংলাদেশের বেশির ভাগ প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন রয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে বাজেট সহায়তা তেমন নেয়া হয়নি সংস্থাটির কাছ থেকে। তবে এবার সরকার বাজেট সহায়তা চাচ্ছে। তিনি বলেন, বাজেট সহায়তার অর্থ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নেয়া যেকোন খাতে ব্যয় করার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু প্রকল্পভিত্তিক অর্থ প্রকল্পের বাইরে ব্যয় করা সম্ভব নয়। এছাড়া বর্তমান করোনাকাল চলছে। এখন লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় একটি চ্যালেঞ্জের বিষয়। এ অবস্থায় বাজেট সহায়তা বেশি প্রয়োজন।

জানা গেছে, দাতারা সাধারণত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীতে (এডিপি) নেয়া প্রকল্পে সহায়তা করে। কিন্তু এবার সরকার বাজেট সহায়তা নিতে বেশি আগ্রহী। কারণ, বাজেট সহায়তার অর্থ সরকার চাইলে উন্নয়ন বা অনুন্নয়ন, যেকোন খাতে খরচ করতে পারে। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য নতুন করে ৫০ কোটি ডলার এবং বিশ্বব্যাংকের ইমারজেন্সি ফান্ড থেকে ১০ কোটি ডলার চেয়েছে সরকার। বাজেট সহায়তার বিষয়ে ইআরডি ও বিশ্বব্যাংক এখন কাজ করছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছে চাওয়া হয়েছে ৭৫ কোটি ডলারের বাজেট সহায়তা। এডিবির কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ৭০ কোটি ডলার চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা এবং বাকি ২০ কোটি ডলার ইমারজেন্সি তহবিলের অর্থ। ইতোমধ্যে ইমারজেন্সি ফান্ড থেকে দুই দফায় ১০ কোটি ডলার করে ২০ কোটি ডলার পাওয়া গেছে। এ ছাড়া ৩০ লাখ ডলার অনুদানও দিয়েছে সংস্থাটি। চীনের নেতৃত্বে গঠিত এআইআইবি কাছে বাংলাদেশ সব মিলিয়ে ৪৫ কোটি ডলার চেয়েছে। এর মধ্যে ২০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা। বাকিটা সহজ শর্তের ঋণ। ইতোমধ্যে এআইআইবি ১৭ কোটি ডলার দিয়েছে। ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (আইডিবি) কাছে ১৫ কোটি ডলারের প্রকল্প সহায়তা চেয়েছে। এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) সদস্য শামসুল আলম বলেন, বাজেট সহায়তা চাওয়ার বিষয়টি ঠিকই আছে। করোনা মোকাবেলায় সরকারের বড় অঙ্কেও অর্থের প্রয়োজন হবে। অর্থনীতি সক্রিয় রাখতে নানা ধরনের প্রণোদনা দিতে হবে। এ জন্য সরকারের টাকা লাগবে। আশা করছি বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের পাশে ছিল, আগামীতেও থাকবে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বব্যাংক করোনা মোকাবেলায় জরুরী সহায়তা হিসেবে ১৪শ’ কোটি ডলার বা ১৪ বিলিয়ন এবং আইএমএফ ৫০ বিলিয়ন ডলারের সহায়তা ঘোষণা করেছে। সব মিলিয়ে জরুরী তহবিল হিসেবে ৬৪ বিলিয়ন ডলারের সহায়তা রয়েছে সংস্থা দুটির হাতে। এছাড়া বিশ্বব্যাংক গ্রুপ দরিদ্র ও দুর্বলদের সুরক্ষা, ব্যবসায়িক সহায়তা এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে জোর দিতে আগামী ১৫ মাসের মধ্যে আরও ১৬০ বিলিয়ন ডলার সহায়তা করবে। এ কারণে করোনা মোকাবেলায় সংস্থা দুটির ফান্ডে এখন ২২৪ বিলিয়ন ডলারের অর্থ রয়েছে। এই অর্থ সহায়তা হিসেবে গরিব দেশগুলোকে ঋণ ও অনুদান হিসেবে দেয়া হবে। বিশ্বব্যাংক গ্রুপের বিভিন্ন সংস্থা, আইআরবিডি, আইডিএ, আইএফসি করোনা মোকাবেলায় পৃথক তহবিল গঠন করতে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সভায় এসব সহায়তা গঠন ও কোন কোন দেশে কতটুকু দেয়া হবে তা নিয়ে আলোচনা ও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

জানা গেছে, কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বড় অঙ্কের অর্থের প্রয়োজন হবে বাংলাদেশের। বিশেষ করে করোনার টিকা আমদানি, অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন এবং বাজেট ঘাটতি মেটানো। চলতি বাজেটে বিদেশী সহায়তা নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৬ হাজার কোটি টাকা যা, গত অর্থবছরের চেয়ে ২০ শতাংশ বেশি। এই অর্থ সংগ্রহে বিশ্ব্যাংক গ্রুপ ও আইএমএফের সহায়তা প্রয়োজন বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়া করোনা মোকাবেলায়ও সরকারের বিপুল অঙ্কের অর্থের প্রয়োজন হবে। জানা গেছে, বিশ্বব্যাংকের ভার্চুয়াল বৈঠকটির প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শুরু করা হয়েছে। আগামী ৬ অক্টোবর থেকে ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে বার্ষিক সভা শুরু হবে। তবে মূল বৈঠকটি শুরু হবে ১২ অক্টোবর। আগামী ২৬ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে বৈঠকের সমাপ্তি ঘোষণা করা হবে। করোনা মোকাবেলায় এবারের বার্ষিক সভাটি গুরুত্বপূর্ণ এজেন্ডা হিসেবে নেয়া হয়েছে।

 

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া
অর্থনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর