• শুক্রবার   ১০ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৬ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪১

১৯

সার্জারি ছাড়াই পাইলস সারাতে এড়িয়ে চলুন এসব খাবার

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ৩০ জুন ২০২০  

এখন অনেকে হরহামেশাই অর্শ বা পাইলসে ভুগে থাকেন। অনিয়মিত জীবনযাপন, পানি কম খাওয়া, মশলাযুক্ত খাবার বেশি খাওয়ার ফলে এই সমস্যা সৃষ্টি হয়। সব বয়সেরই নারী বা পুরুষ যে কারোরই হতে পারে এই রোগ। 

পাইলস সাধারণত দুই প্রকার। প্রথমটি হল এক্সটার্নাল পাইলস, যাকে ব্লাইন্ড পাইলসও বলে। দ্বিতীয়টি হল ইন্টারনাল পাইলস, যাকে ব্লিডিং পাইলস বলে। এই ইন্টার্নাল পাইলস খুবই বিপদজনক। কারণ এর থেকে প্রায়শই রক্তক্ষরণ হতে দেখা যায়। আর রক্তক্ষরণ দীর্ঘস্থায়ী হলে মলদ্বারে ক্যান্সারও হতে পারে।

একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, শতকরা প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ পাইলস বা অর্শরোগ দ্বারা আক্রান্ত হন। তবুও অনেকেই এই রোগটিকে এড়িয়ে চলেন, ডাক্তারের কাছে যাওয়ার প্রয়োজন বোধ করেন না। কিন্তু এই রোগটি খুবই বিপদজনক। বিশেষজ্ঞদের মতে, খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনের মাধ্যমে এই রোগকে অনায়াসেই দূর করা যায়। কারণ, খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন হলেই দূর হবে কোষ্ঠকাঠিন্য, আর কোষ্ঠকাঠিন্যকে নিরাময় করা গেলেই দূর হবে পাইলস বা অর্শ। তবে অনেক সময় বংশগত ভাবেও অনেকের এই রোগ হয়ে থাকে। 

পাইলসের সমস্যা এড়াতে বা যদি আপনার এরইমধ্যে হয়েও থাকে তবে খাওয়া দাওয়ায় সচেতন হন। যে সব খাবার এই সমস্যা বাড়িয়ে তোলে সেই খাবারগুলো পরিহার করুন। আপনি যদি ধূমপায়ী হন। তবে প্রথমেই তা বর্জন করুন। আর জেনে নিন কোন খাবারগুলো এড়িয়ে চলবেন- 

মশলাযুক্ত খাবার 

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, পাইলস দ্বারা আক্রান্ত হলে মশলাযুক্ত খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে। অতিরিক্ত মশলাযুক্ত খাবার আপনার হজম ক্ষমতাকে দুর্বল করে দিতে পারে। পাশাপাশি কোষ্ঠ্যকাঠিন্য বাড়ে যায়। ফলে অর্শের ব্যথাও বৃদ্ধি করতে পারে।

কফি ও চা 

আপনার পাইলস থাকলে কফি এবং চা জাতীয় পানীয় এড়িয়ে চলুন। এগুলি পাইলসের সমস্যাকে আরো বৃদ্ধি করে। সুস্থ থাকতে পান করতে পারেন গ্রিন টি।

বেকারি খাবার

এই খাবারগুলো অপরিশোধিত ময়দা এবং চিনি দিয়ে তৈরি হয়। যদিও এগুলো সহজেই হজম করা যায়। তবে পাচনতন্ত্রের পক্ষে ভালো নয় একদমই। কারণ বেকারির সমস্ত জিনিসে ফাইবার একেবারেই থাকে না। যা কোষ্ঠকাঠিন্যকে বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। আর কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিলে পাইলসের সমস্যা বাড়তে পারে।

ভাজাপোড়া খাবার

বেশিরভাগ মানুষই প্যাকেটজাত খাবার বা তেলেভাজা জাতীয় খাবার বেশি পছন্দ করেন। চিকিৎসকদের মতে, আপনি যদি পাইলসের রোগী হন, তবে আপনার উচিত ভাজা খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা। কারণ এগুলঅ হজম ক্ষমতাকে দুর্বল করে তোলে এবং পাইলসের সমস্যাকেও বৃদ্ধি করে। 

লাল মাংস 

পাইলসের জন্য লাল মাংস পুরোপুরি খাওয়া বাদ দিন। এটি পাইলসের বৃদ্ধি করে খুব দ্রুত। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, আপনি যদি কোষ্ঠকাঠিন্যতে ভোগেন এবং অর্শের ফলে রক্তক্ষরণ হয়, তবে কিছু সময়ের জন্য মাংস খাওয়া বন্ধ করুন। বিশেষ করে রেডমিট খাওয়া ছেড়ে দিন, পাশাপাশি দোকান থেকে কেনা মাংস জাতীয় বিভিন্ন খাবারগুলোও খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

পাশাপাশি প্রচুর পানি করুন। তরল এবং সহজে হজম হয় এমন খাবার খান। কোষ্ঠ্যকাঠিন্য বাড়িয়ে তোলে সেসব খাবার পুরোপুরি খাদ্য তালিকা থেকে বাদ দিন। এভাবে অনেক সময় কোনো রকম সার্জারি ছাড়াই পুরোপুরি ভালো হয়ে যায় পাইলস। 

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর