• মঙ্গলবার   ০৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১২ মুহররম ১৪৪৪

সাড়ে ৭ কেজির কাতলা ধরে জিতলেন আড়াই লাখ টাকা

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২২  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মেড্ডা এলাকার শৌখিন মৎস্যশিকারি কাজল মিয়া (৪৫) ৭ কেজি ৬৯৫ গ্রাম ওজনের একটি কাতলা মাছ ধরে আড়াই লাখ টাকা পুরস্কার পেয়েছেন। শুক্রবার (২৪ জুন) দিনভর বড়শি দিয়ে শৌখিন মৎস্য শিকার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে তিনি প্রথম হয়েছেন। সরাইল উপজেলার কালীকচ্ছ ইউনিয়নের কলেজপাড়ার কলেজ দিঘিতে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

সরাইল উপজেলা শৌখিন মৎস্য শিকার সমিতি নামের একটি সংগঠন এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। মৎস্য শিকার প্রতিযোগিতা পরিচালনা করেন সংগঠনের সভাপতি রতন বক্স। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা প্রতিবছর উপজেলার তিন-চারটি দিঘিতে পালাক্রমে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকি। এর অংশ হিসেবে আজকের এই আয়োজন। এর আগে ১৭ জুন একই এলাকার দিরেশ দিঘিতে এ রকম আরেকটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল।’

সরেজমিনে কলেজ দিঘিতে দেখা গেছে, সকাল ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় ৩০ জন মৎস্যশিকারি অংশ নেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও ঢাকা, হবিগঞ্জ, ময়মনসিংহ ও কিশোরগঞ্জ থেকে এসেছেন তারা। এ জন্য প্রত্যেক প্রতিযোগীকে সাড়ে ২৫ হাজার টাকা দিতে হয়েছে আয়োজকদের। প্রতিযোগীদের জন্য ছিল ৫ লাখ ৬০ হাজার টাকার ছয়টি পুরস্কার।

প্রতিযোগীদের মধ্যে ৫ কেজি ৮১৫ গ্রাম ওজনের কাতলা মাছ শিকার করে দ্বিতীয় হয়েছেন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মনতলা গ্রামের সবুজ আহমেদ। পুরস্কার হিসেবে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা। তৃতীয় হয়েছেন সরাইল উপজেলার হালুয়াপাড়ার আবদুল আহাদ। তিনি ৫ কেজি ৪৩০ গ্রাম ওজনের কাতল মাছ ধরে পেয়েছেন ৬০ হাজার টাকা। মাধবপুরের মনতলার আলাল উদ্দিন ৪ কেজি ৫৮৫ গ্রাম ওজনের কাতলা শিকার করে চতুর্থ হয়েছেন। পেয়েছেন ৫০ হাজার টাকা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার উরশিউড়া গ্রামের শিতোষ বিশ্বাস ৪ কেজি ৩৫ গ্রাম ওজনের কাতলা ধরে পঞ্চম পুরস্কার পেয়েছেন ৪০ হাজার টাকা। মেড্ডা এলাকার শরীফ মিয়া ৩ কেজি ৯৮৫ গ্রাম ওজনের কাতলা ধরে ষষ্ঠ পুরস্কার হিসেবে ৩৫ হাজার টাকা পেয়েছেন। মৎস্য শিকার প্রতিযোগিতা দেখতে বিকেলে দিঘির চারপাশে দর্শনার্থীরা ভিড় করেন।

প্রতিযোগিতায় প্রথম হওয়া কাজল মিয়া বলেন, তিনি দেশের বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠিত মৎস্য শিকার প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। এ বছর এখন পর্যন্ত চার জায়গায় অংশ নিলেও আজই প্রথম পুরস্কার পেয়েছেন। এ জন্য খুবই ভালো লাগছে।

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া