• মঙ্গলবার   ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৭ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

পথচারীদের দৃষ্টি কাড়ছে সিলেটের ‘ব্রাজিল বাড়ি’

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০২২  

রংচঙে একতলা বাড়ি। ঘরের দেয়াল থেকে শুরু করে দরজা, জানালা কিংবা সীমানাপ্রাচীর—সব জায়গাতেই আঁকা হয়েছে ব্রাজিলের পতাকা। সবুজের মধ্যে লাল বাংলাদেশের পতাকার চিহ্নও বাদ যায়নি। বাড়ির ছাদে টাঙানো হয়েছে বাংলাদেশ আর ব্রাজিলের পতাকা। ছাদের মাঝখানের অংশে ঝুলছে ব্রাজিল দলকে সমর্থন ও শুভকামনা জানিয়ে টাঙানো হয়েছে বড় ফেস্টুন। ছোটখাটো বাড়ি হলেও দূর থেকেই দৃষ্টি কাড়ছে সবুজ, হলুদ আর নীল মিশ্রণের বাড়িটি। 

সিলেট নগরের মাছিমপুর এলাকার সরু সড়কের পাশে এ বাড়ি। বিচিত্র এই বাড়ির মালিক আবুল কালাম ওরফে দিপু (৩২)। স্থানীয়ভাবে বাড়িটি এখন ‘ব্রাজিল বাড়ি’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। ওই সড়ক ধরে যিনি যাচ্ছেন, তিনিই বাড়িটির দিকে অবাক হয়ে তাকাচ্ছেন। বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিনই মানুষ ব্রাজিল বাড়ি দেখতে আসছেন। ছবি তুলে, ভিডিও ধারণ করে নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। পছন্দের দল ব্রাজিলকে ভালোবেসেই পুরো বাড়িতে ব্রাজিলের পতাকার আদলে রং করেছেন দিপু।

দিপু পেশায় ব্যবসায়ী। জিন্দাবাজারে কম্পিউটার সারাই ও যন্ত্রাংশের দোকান আছে তার। তবে ছাত্রাবস্থায় কালাম ফুটবল খেলতেন। দেশের বিভিন্ন এলাকায় খ্যাপে ফুটবল খেলার অভিজ্ঞতা আছে কালামের। তার বাবা আবদুল হান্নান (৭২) সাবেক ইউপি মেম্বার ছিলেন। এখন বাড়ির সঙ্গে লাগোয়া ওষুধের দোকানে বসেন তিনি। ওই দোকানও ব্রাজিলের পতাকায় রাঙিয়ে তোলা হয়েছে। আবদুল হান্নান সৌদি আরবের সমর্থক। তবে কালামের তিন ভাইসহ নয় সদস্য ব্রাজিলের সমর্থক।

ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল, বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে দিপু স্থানীয় কয়েকজন শিশুকে ফুটবলের কসরত দেখাচ্ছিলেন।

দিপু বলেন, ব্রাজিল দলকে ভালোবাসা থেকেই তিনি এই কাজ করেছেন। একতলা বাড়িটি এভাবে রং করতে তাঁর প্রায় এক লাখ টাকা খরচ হয়েছে। বড় দুই ভাইসহ পরিবারের সদস্যরা তাকে এতে উৎসাহ দিয়েছেন। বাড়ির রঙের কাজ শেষ হওয়ার পর সামনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও রাঙিয়েছেন। এতে রং আরও ফুটে উঠেছে। এখন প্রতিদিনই ১০ থেকে ১৫ জন মানুষ বিভিন্ন এলাকা থেকে বাড়িটি দেখতে আসছেন। বিষয়টি উপভোগ করছেন তিনি।

দিপুর মতে, ব্রাজিলের বিশ্বকাপ দলটি খুবই শক্তিশালী। তিনি আশা করছেন, নেইমারের দল এবার ভালো ফলাফল আনবে। তবে কোনো অঘটন ঘটলেও ব্রাজিলের প্রতি সমর্থনে কোনো কমতি থাকবে না বলে জানান তিনি।

ব্রাজিল বাড়ির খবর পেয়ে দেখতে এসেছিলেন ব্যবসায়ী ফাহাদ মো. হোসেন। তিনি নিজেও ব্রাজিলের সমর্থক। ফরহাদ বলেন, বাড়িটি দেখে খুবই ভালো লেগেছে। ভক্তরা কোনো দলকে ভালোবেসে কতটুকু করতে পারে, এটাই প্রমাণ করেছেন বাড়ির মালিক। এই বাড়ির সঙ্গে তিনি নিজের ছবি তুলেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা সোহাগ আহমদ বলেন, আবুল কালাম ব্রাজিল দলের অনেক বড় ভক্ত। ব্রাজিলের খেলাকে কেন্দ্র করে তিনি এলাকার শিশুদের জার্সি ও ফুটবল কিনে দিয়েছেন। এলাকায় ফুটবল খেলার কোনো আয়োজন হলেও আবুল কালামকে সবার আগে পাওয়া যায়।

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া