• রোববার ০১ অক্টোবর ২০২৩ ||

  • আশ্বিন ১৬ ১৪৩০

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫

নির্মাতা দীপঙ্কর দীপনের স্ট্যাটাসের জবাবে যা বললেন পরীমণি

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ৬ জুন ২০২৩  

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পরীমণি। ভালোবেসে বিয়ে করেন অভিনেতা শরিফুল রাজকে। এরপর ধীরে ধীরে পরীমণির সংসার জীবনের টানাপোড়েন শুরু হয়। তাদের সংসারের বিভিন্ন ঘটনা এখন আর কারও অজানা নয়।

সবশেষ গত ২৯ মে রাজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে অভিনেত্রী তানজিন তিশা, নাজিফা তুষি ও সুনেরাহ বিনতে কামালের কিছু ছবি ও ভিডিও ক্লিপস ফাঁস হয়। তারপর থেকেই শুরু হয় নতুন আলোচনা-সমালোচনা। এ নিয়ে শুরু হয় রাজ-পরীর বাকযুদ্ধ।

এদিকে আজ সোমবার (৫ মে) দুপুরে পরীমণি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে অভিনেত্রী সুনেরাহ ও পরিচালক দীপঙ্কর দীপনের উদ্দেশ্যে একটি স্ট্যাটাস শেয়ার করেন। এতে পরী লেখেন, ‘জি, ১০ দিন যে জামাই বাসা ছেড়ে গেছে এটা তো আপনার সিনেমার নায়িকার কারণেই জানাজানি হইল ভাইয়া! সিনেমা ফ্যাক্ট, আবার কারোর ঘাড়ে চেপে লাইমলাইটে আসাটাও ফ্যাক্ট! যেটা আপনার সিনেমার এই মেয়েটা করলো। সবখানে লাফাতে লাফাতে গিয়ে ইন্টারভিও দিচ্ছে। এত ডাক তো তার কোনোকালে আর আসে নাই। এখন বইলেন খালি আমার থুথু না চাইটা যেন সিনেমার কথাটাও ঠিকমতো বলে। আপনার কিন্তু আরও বড় শিল্পীরা আছেন এই সিনেমায়। তাদের এখনো ওনার মতো প্রমোশনে যেতে দেখেনি। নাকি সব দায়িত্ব এবার এই একজনেরই!

আর ভাইয়া, আপনার সাথে তো আমার পার্সোনালি অনেক ভালো সম্পর্ক! এত বড় স্ট্যাটাস লিখতে পারলেন অথচ আমাকে একটা কল করে কিছু বলতে পারলেন না! আফসোস!

আর এমন তুচ্ছ করে তুচ্ছ লিখবেন না আর, প্লিজ ভাইয়া। জীবন সিনেমার কাছে তুচ্ছ করে দেওয়া কোনো মেকারের সাথে যায় না। জীবন দামি। সব থেকে দামি।’ পরিচালক দীপঙ্কর দীপনের সেই স্ট্যাটাস নিয়েই পরী বেশ চটেছেন। দীপঙ্কর আজ দুপুরে লেখেন, ভাই ও বোন প্লিজ থামেন। প্লিজ আমাদের ক্ষমা করে দেন। একবার না, বারবার এসব হচ্ছে।

নিজেদের টাকা ও ব্যক্তিগত জীবন নষ্ট করে, দিন-রাত অপরিসীম কষ্ট করে একটা একটা কনটেন্ট বানিয়ে নিয়ে আসি, দর্শকের সামনে উপস্থাপন করি, তখনই আপনাদের ব্যক্তিগত জীবনের নানা কাহিনি সামনে চলে আসে। সিনেমার কনটেন্টের থেকে দর্শকদের আগ্রহ চলে যায় আপনাদের প্রেম, বিয়ে, বিচ্ছেদ, সন্তান এসব দিকে, যা সামনে আসারই কথা নয়। একবার না বারবার হচ্ছে এসব- সত্যি আমি টায়ার্ড, আপসেট। প্রত্যেকের জীবনেই এসব আছে- কিন্তু এসব আমরা সামনে নিয়ে আসি না। এসব নিয়ে কথা বলি না পাবলিকলি। আপনারা তো পাশের মানুষটাকেও কিছু বলেন ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে। নিজেদের পাবলিক করলে পাবলিক তো মজা নেবেই। আপনারা শুরুটা করেন, বাকিরা আপনাদের খোঁচাতে থাকে।

সাংবাদিক ভাই-বোন, পত্রিকার মালিকপক্ষ, আপনাদের অনুরোধ করি, প্লিজ ইগনোর করেন এসব। এসব ছাড়া আপনাদের পত্রিকা চলবে না, আমি বিশ্বাস করি না। অনেক শক্ত আপনাদের ভিত্তি। শস্তা ইউটিউবার আর ল্যাপটপ বেসড অনলাইন পত্রিকা করুক, আপনারা কেন? আপনারা স্টাবলিশ স্বনামধন্য সাংবাদিকরা একবার ইগনোর করে দেখুন, সব থেমে যাবে।

দর্শকদের অনুরোধ করি, যখন দেশের বাইরে কেউ আপনাকে জিজ্ঞাসা করবে, আপনাদের দেশের সিনেমার স্ট্যান্ডার্ড কেমন? তখন সামনে আসবে কিন্তু তারকাদের বিয়ে, প্রেম, বিচ্ছেদের গল্প দিয়ে নিজের দেশের ব্র্যান্ডিং হবে না, ওসব কেউ মাথায়ই আনবে না- আসবে কনটেন্ট, নিজের দেশের সিনেমার পর্দায় কি চলছে সেটা- তারকাদের ঘরে কি চলছে সেটা নয়। ওটা তারা আলোচনা করুক, যারা চায় এই দেশে সিনেমা বন্ধ হয়ে যাক- তারা তিলকে তাল করবে।

আপনারা জাস্ট ইগনোর করুন। কথা বলা, শেয়ার করা বন্ধ করে দিন- আপনাদের আগ্রহ কমলে সব বন্ধ হয়ে যাবে। সবার ঘরেই নানা প্রবলেম থাকে, ওগুলো নিয়ে কথা বলার কী আছে? কনটেন্ট নিয়ে কথা বলুন- আলোচনা করুন, সমালোচনা করুন, ভালো কাজকে অনুপ্রেরণা দিন। সত্যি বলছি- ভালো কাজ আপনারা যা দেখেন এই দেশে তা খুব কষ্ট করে হয়- চোখে পানি চলে আসার মতো কষ্ট করে। আমার একার না, সবার। সবাই কষ্ট করে। এই কষ্টকে মূল্যায়ন করুন- ব্যক্তিগত জীবনে কারও ভুল বা খামখেয়ালিকে নয়। আপনারা এসব নিয়ে আগ্রহ কমালে সব কমে আসবে ক্রমান্বয়ে।

আজীবনই পৃথিবীতে কেচ্ছা-কাহিনির জনপ্রিয়তা বেশি। কিন্তু এটা বাংলাদেশের সিনেমা মূলত মেইনসি্ট্রম সিনেমা- বিনির্মাণের সময় আমরা অনেক পরিচালক, রাইটার, শিল্পী-কলাকুশলী প্রাণপণে চেষ্টা করছি। এ বিনির্মাণে সবার দায়িত্বশীল আচরণ প্রয়োজন। কষ্ট করতে আমরা রাজি আছি, আরও করব, নিজেদের উন্নত করব- আমাদের মোটিভেশন দরকার। অল্প অল্প করে জমা হতাশা একসঙ্গে হয়ে আমাকে/ আমাদের মেরে ফেলতে পারে। বাংলাদেশের সিনেমার ভীষণ সম্ভাবনা- তুচ্ছ কারণে সেটা নষ্ট না করি।

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া