রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

৮ বছর মুখ দিয়ে কিছু খেতে পারেনি তরুণী, কী হয়েছিল তার?

৮ বছর মুখ দিয়ে কিছু খেতে পারেনি তরুণী, কী হয়েছিল তার?

সংগৃহীত

লিভ রোজ (২৫) ব্রিটেনের নাগরিক। তার বয়স যখন ৩ বছর, খুব পেটে ব্যথা হতো। চিকিৎসকের পরামর্শ নেন তার বাবা-মা। কেউই তেমন কিছু ধরতে পারেননি। বয়স যখন ১৭ তখন জটিলতা আরও বেড়ে যায়। সেদ্ধ চিকেন এবং সাদামাঠা পাস্তা ছাড়া আর কিছু খেয়েই হজম করতে পারত না সে। বমি করে ফেলত।

লিভের পাকস্থলীতে পক্ষাঘাত হয়েছে। মেডিকেলের ভাষায় যাকে বলে গ্যাস্ট্রোপ্যারেসিস। ব্রিটেনের গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টিনাল সোসাইটির (জিআই) সমীক্ষা বলছে, বিশ্বে যত মানুষ রয়েছেন, তাদের মধ্যে খুব অল্প সংখ্যকের এই রোগ রয়েছে।

চিকিৎসকরা জানান, গ্যাস্ট্রোপ্যারেসিস হয়েছে লিভের। তার পাকস্থলীর মধ্যে দিয়ে খুব ধীরে ধীরে নড়াচড়া করে খাবার। ক্রমে কার্যকারিতা কমতে থাকে তার নাড়ির।

এই রোগের লক্ষ্মণগুলোর মধ্যে রয়েছে বমিভাব, কিছু খেলেই বমি, পেটে ব্যথা, পেটভার লাগা। লিভ জানান, তার সমস্যাগুলো প্রথম মা-বাবাও বুঝতে পারেননি। তারা ভাবতেন, লিভ অবাধ্যতা করছেন। কথা শুনছেন না। লিভের কথায়, ‘যতক্ষণ তোমার থেকে খাবার কেউ ছিনিয়ে না নেয়, ততক্ষণ বুঝবে না যে, এটা কত জরুরি।’

লিভ জানিয়েছেন, প্রায়ই চিকিৎসকদের কাছে যেতেন তিনি। তারাও তাকে ফেরত পাঠিয়ে দিতেন। মনস্তত্ত্ববিদের কাছে যেতেও বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। কারণ, কেউ বুঝতেই পারতেন না, লিভের সমস্যাটা কোথায়।

একবার একটি বিশেষ কেন্দ্রে সারা দিন রাখা হয়েছিল লিভকে। দেখা হয়েছিল, কী খান তিনি। কেন খান না। শেষে চিকিৎসকেরা বুঝতে পেরেছিলেন, ইচ্ছা করে এসব করছেন না লিভ। ‘ইটিং ডিসঅর্ডার’ নেই তার। অর্থাৎ ওজন কমানোর জন্য ইচ্ছা করে কম খাচ্ছেন, এমন নয়।

২০১৭ সালের মার্চে লিভের অসুখটা ধরা পড়ে। চিকিৎসকেরা কিছু পরীক্ষার মাধ্যমে বুঝতে পারেন তার সমস্যা কোথায়। প্রথমে লিভের পাকস্থলীতে বোটক্স ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়। যাতে তার পেশি খাবার ধরে রাখতে পারে, সেগুলো পরবর্তী অংশে চলাচলের জায়গা করে দিতে পারে।

এখন লিভের হৃৎপিণ্ডে তারের মতো হিকম্যান লাইন প্রবেশ করানো হয়েছে। তার মাধ্যমেই প্রয়োজনীয় পুষ্টি পৌঁছে দেওয়া হয় লিভের শরীরে। যদিও তাতে সমস্যা কমেনি। যে নলের (ফিডিং টিউব) মাধ্যমে খাবার যায়, তা নিয়মিত পরিষ্কার রাখতে হয়। নয়তো সেপসিস পর্যন্ত হতে পারে। ওই টিউবের কারণে লিভের কিডনি, লিভারেও চাপ পড়ছে।

গত ৮ বছর ধরে মুখ দিয়ে কিছু খেতে বা পান করতে পারেননি তিনি। সবটাই নলের মাধ্যমে শরীরে যায়। এই পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হয়েছে তাকে। খাবার দেখেও লোভ সংবরণ করতে হয়েছে।

লিভ জানান, এখনও প্রিয় খাবারের স্বাদ মুখে লেগে রয়েছে তার। সেই স্মৃতি নিয়েই বেঁচে রয়েছেন। তার কথায়, খাবার জীবনের একটা বড় অংশ। যখন পরিবারের সবাই খায়, আমি সেই ঘরে থাকি না। আইসক্রিম খুব মিস করি।

সূত্র: ঢাকা পোষ্ট

সর্বশেষ: