• বৃহস্পতিবার   ২০ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৭ ১৪২৮

  • || ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ২৪১ কোটি টাকার সড়ক পাচ্ছে বগুড়াবাসী

দৈনিক বগুড়া

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০২১  

দীর্ঘ ভোগান্তি পর এবার আলোর মুখ দেখতে পাবে পূর্ব বগুড়ার বাসিন্দারা। বগুড়া জেলা থেকে সারিয়াকান্দি, গাবতলী, সোনাতলা এই তিন উপজেলাবাসীর জন্য সংস্কার করা হচ্ছে সড়ক এবং নির্মাণ করা হচ্ছে বাঙালি নদীর উপর আড়িয়ারঘাট সেতু। ২৪১ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হচ্ছে সড়ক এবং নির্মাণ করা হচ্ছে বাঙালি নদীর উপর আড়িয়ারঘাট সেতু।

বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বগুড়া শহরের পূর্ব দিকে রয়েছে জেলার তিনটি উপজেলা। উপজেলাগুলো হল- গাবতলী, সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা। এই তিন উপজেলা মূলত কৃষি প্রধান এলাকা। একই সঙ্গে যমুনা নদীর তীরে হওয়ার কারণে বন্যা প্রবণ এলাকাও। এই তিন উপজেলায় যোগাযোগের জন্য আদিকাল থেকে জেলা শহরের ফতেহ আলী বাজারের সামনে থেকে একটি সড়ক ব্যবহার হয়ে আসছে। এই সড়ক দিয়ে সরাসরি তিন উপজেলায় যাতায়াত করে থাকে মানুষ।

চেলোপাড়া থেকে সারিয়াকান্দি পর্যন্ত সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। সড়কটি সরু হওয়ার কারণে নানা দুর্ভোগের শিকার হন এই পথে যাতায়াতকারী কয়েক লাখ মানুষ।সড়কটির বিভিন্ন স্থানে ভাঙা, গর্ত, পিচ-পাথর উঠে যাওয়ার সঙ্গে বর্ষাকালে বৃষ্টিপাতের কারণে সাধারণ পথচারীদের দুর্ভোগের শেষ নেই। কয়েক বছর আগে বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের কাছে দাবি জানালে তিনি সড়ক সংস্কারের আশ্বাস দেন।

এরই মধ্যে গত ২০১৭ সালের ২৬ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারিয়াকান্দিতে বন্যা আক্রান্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে এমপি আব্দুল মান্নান এলাকাবাসীর দাবির বিষয়টি আবারও তুলে ধরেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী সড়কটি সংস্কারের ঘোষণা দেন। এরপর সড়ক বিভাগ সেটি সার্ভে ও একটি প্রকল্প তৈরি করে সড়কও সেতু মন্ত্রাণালয়ে জমা দেয়। সবশেষে প্রকল্পটি একনেকে পাশ করা হয়। একনেকের সভায় সড়কটি আধুনিক করে নির্মাণে ২৪১ কোটি টাকার অনুমোদন দেওয়া হয়।

এই প্রকল্পের আওতায় সোনাতলা উপজেলার আড়িয়ার ঘাটে বাঙালি নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। আড়িয়ার ঘাটের বেইলী ব্রিজটি সরিয়ে সেখানে ঢালাই করে সেতু নির্মাণ করা হবে। এছাড়া, বগুড়া শহরের চেলোপাড়া ব্রিজের পূর্ব পাড় হতে সড়ক সংস্কার কাজ ধরা হয়েছে।

জানা যায়, বগুড়া শহরের চেলোপাড়া থেকে সাবগ্রাম পর্যন্ত সড়কটি দীর্ঘ কয়েক বছর ধরেই বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। বন্যা, বৃষ্টি, খরায় সড়কের মূল কাঠামো নষ্ট হয়ে গেছে। যে কারণে বর্ষাকালে নদী আর খরায় বালুর চর মনে হয়। এই সড়কের সঙ্গে তিন উপজেলার সংযোগ সড়কটির বেশিরভাগ স্থানেই পিচ-পাথর উঠে গিয়ে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। মাঝে মাঝেই দুর্ঘটনার শিকার হন পথচারীরা। এবার এই সংস্কারের মধ্য দিয়ে এলাকাবাসীর দির্ঘদিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সড়ক সংস্কার কাজ শেষ হলে এই অঞ্চলের মানুষের আগের থেকে আরও দিগুণ দিনবদলের গল্প গাঁথা হবে। এছাড়াও সড়কটি সংস্কার হলে এলাকার কৃষি ফসল দ্রুত শহরে পৌঁছানো যাবে। এলাকার অর্থনৈতিক অগ্রগতি আরও দিগুণ হবে।

বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুজ্জামান জানান, বগুড়া শহরের চেলোপাড়া থেকে সাবগ্রাম দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়ক পর্যন্ত সাড়ে ৩ কিলোমিটার ১৮ ফুটের সড়কটির দুই পাশে ৩ ফুট করে ৬ ফুট বাড়িয়ে ২৪ ফুট পর্যন্ত প্রশস্ত করা হবে। এই সাড়ে ৩ কিলোমিটার সড়কটি ঢালাই করে নির্মাণ করা হবে। এখন যা অবস্থা আছে তার থেকে প্রায় দেড় ফুট উচুঁ করা হবে। যেন পানি এই এলাকার রাস্তাটিকে নষ্ট না করে। আর সারিয়াকান্দি উপজেলা পর্যন্ত দৈর্ঘ্য হবে সাড়ে ২২ কিলোমিটার। রাস্তার বাঁক কমানোর চেষ্টা রয়েছে এই প্রকল্পের মধ্যে।

বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান জানান, দীর্ঘদিন ধরেই এলাকাবাসী রাস্তাটি সংস্কারের জন্য জানিয়েছিল। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিষয়টি তুলে ধরা হলে তিনি এলাকাবাসীর দুর্দশা মোচনে সেটি অনুমোদন দিয়েছেন। কৃষি প্রধান এলাকা হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি দেখছেন।

দৈনিক বগুড়া
দৈনিক বগুড়া