শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১

কাশি, দাদ, পেটের ব্যথার সমাধান সন্ধ্যামালতী

কাশি, দাদ, পেটের ব্যথার সমাধান সন্ধ্যামালতী

সংগৃহীত

সন্ধ্যা নামার মুখে ফোটে সন্ধ্যামালতী ফুল। সন্ধ্যামালতী একটি ঝোপজাতীয় সপুষ্পক বীরুৎ। এর বৈজ্ঞানিক নাম Mirabilis jalapa। Nyctaginaceae পরিবারের Mirabilis গণের ভেষজ গুল্ম। সন্ধ্যামালতী এমন এক ধরনের ফুল যা সাধারণত বসতবাড়ি সাজানোর কাজে ব্যবহৃত হয়।

সন্ধ্যামালতী বিভিন্ন রঙের হয়ে থাকে। তবে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় গাঢ় গোলাপি রঙের সন্ধ্যামালতী। হলুদ রঙেরও হয় এ ফুল। আবার কখনো দেখা যায় ধবধবে সাদা কিংবা টকটকে লাল রঙে। নিজের ইচ্ছে হলে এক ফুলেই দুই রঙে নিজেকে সাজায় সন্ধ্যামালতী। কিছু সন্ধ্যামালতী বাতাসে ছড়িয়ে দেয় হালকা মিষ্টি সুগন্ধ। এই গাছ ১.৫ মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে। এদের মূল কন্দাল বিশিষ্ট, কাণ্ড মসৃণ অথবা কিঞ্চিৎ রোমশ, পর্বগুলো স্ফীত হয়। পাতা দেখতে ডিম্বাকৃতি থেকে উপবৃত্তাকার হয়। পাতার দৈর্ঘ্য ৫ থেকে ১২সেমি ও প্রস্থ ২ থেকে ৬ সেমি।

মার্চ ও মে মাস পর্যন্ত ফুল ফোটে এবং আগস্ট থেকে নভেম্বর মাসের মধ্যে বীজ হয়। অতিরিক্ত রোদ সহ্য হয় না সন্ধ্যামালতীর। আবার, একদম স্যাঁতস্যাঁতে জায়গাও পছন্দ নয়। মূলত, আবছা আলো-ছায়াযুক্ত স্থানই সন্ধ্যামালতীর জন্য উপযুক্ত। এই গাছ বাংলাদেশের সর্বত্র পাওয়া যায়। সন্ধ্যামালতী গাছের নানা ঔষধি গুণাগুণ রয়েছে।

উপকারিতা:

১. সন্ধ্যামালতী পাতার রস লাগালে আগুনে পোড়ায় উপকার পাওয়া যায়।
২. সন্ধ্যামালতীর পাতার রস খেলে কাশি দ্রুত সেরে যায়।
৩. শরীরের কোনো স্থানে দাদ হলে সেই ক্ষত স্থানে সন্ধ্যামালতী ফুলের রস লাগালে দাদ দ্রুত সেরে যায়।
৪. কানে শূলের ব্যথা হলে সন্ধ্যামালতী ফুলের রস হালকা গরম করে কানে দিলে উপকার পাওয়া যায়।
৫. সন্ধ্যামালতীর শিকড় সিদ্ধ করে এই ক্বাথ খেলে পেটের ব্যথায় উপকার পাওয়া যায়।
৬. সন্ধ্যামালতীর শিকড় সিদ্ধ করে এই ক্বাথ খেলে শোথ রোগ ভালো হয়।
৭. সন্ধ্যামালতীর মূল থেকে বের করা রস কানের ব্যথা, ডায়রিয়া, আমাশয়, সিফিলিস এবং লিভারের সংক্রমণের জন্য ব্যবহার করা হয়। 
৮. মৌমাছি ও বিচ্ছুর কামড়ে ব্যথা নাশ করতে সন্ধ্যামালতীর ডাল ব্যবহৃত হয়। এছাড়া বিভিন্ন ভেষজ ঔষধ তৈরিতে এর ফুল ও শিকড় ব্যবহার হয়।

সূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ

সর্বশেষ: