মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বিয়ের পরও যে বদভ্যাসে বাড়তে পারে বিপদ!

বিয়ের পরও যে বদভ্যাসে বাড়তে পারে বিপদ!

সংগৃহীত

ব্যক্তিজীবনে একজন মানুষের নানান বদ-অভ্যাস থাকে। বদ-অভ্যাসগুলো ধীরে ধীরে গুরুতর হতে থাকে, যা খুব একটা গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয় না। তবে বিয়ের পরও এসব অভ্যাস চালিয়ে গেলে সঙ্গীর সঙ্গে আপনার বোঝাপড়ায় ঝামেলা তৈরি হতে পারে। কখনও কখনও বিচ্ছেদের কারণও হয়ে ওঠে এসব বদ-অভ্যাস।

১. বিয়ের আগে অফিস শেষে বন্ধু বা সহকর্মীদের সঙ্গে আড্ডা দিয়ে রাত করে বাসায় ফিরতেন। বিয়ের পরে এই কাজটি নিয়মিত হয়ে গেলে সঙ্গীর সঙ্গে আপনার ঝামেলা বাড়তে পারে। তাই বিয়ের পর এই কাজটি যথাসম্ভব এড়িয়ে চলুন।

২. বিয়ের আগে ঘরে ঢুকে সোজা নিজের ঘরে চলে যেতেন। কিন্তু বিয়ের পর বাসার দরজা যদি আপনার স্ত্রী খুলে দেন, তাহলে তাকে কুশলাদি জিজ্ঞাসা করুন। দরজা খোলার পরই একটা মিষ্টিহাসি দিয়ে তাকে জড়িয়েও ধরতে পারেন। এতে নিজেদের মধ্যে সখ্যতা বাড়বে।

৩. ফোন বেজে যাচ্ছে, ধরছেন না। কিংবা ফোনের প্রতি উদাসীন। বিয়ের পরও এই বদ-অভ্যাস চলতে থাকলে বিপদ। এই কাজটি যে কারোই অপছন্দ। সঙ্গীর ক্ষেত্রে তো কথাই নেই। তার ফোন ঠিকঠাক না ধরলে মনোমালিন্য বেড়ে যেতে পারে। এমনকি সন্দেহের তীরও বিধতে পারে।

৪. ‘মা এই রান্নাটি আজ বেশ মজা হয়েছে’ এমন প্রশংসাবাক্য হয়তো মাকে কখনও করাই হয়নি আপনার। বরং উল্টো এটা-সেটা বায়না, রান্না ভালো হয়নি, খাব না। আজ এটা খেতে ইচ্ছে করছে না। এগুলো একধরনের খারাপ অভ্যেস। প্রতিদিন রান্না যে সমান মজাদার হবে, এমনটি না। বরং যিনি কষ্ট করে রান্না করছেন, তার শ্রমের মূল্য দিতে শিখুন। তার প্রশংসা করুন। স্ত্রীর ক্ষেত্রে নাহয় একটু বেশিই করুন। তাতে স্ত্রীর মনও ভালো থাকবে, প্রতিদিন পাতেও জুটবে নিত্যনতুন খাবার।

৫. কথা বলার সময় আগে হয়তো কারও দিকে তাকাতেন না। তবে বিয়ের পর এ বদভ্যাস পাল্টে ফেলুন। দিনের পর দিন সঙ্গীর মুখের দিকে না তাকিয়ে কথা বলে গেলে সে বিরক্ত হবে। হয়তো সারা দিন একসঙ্গে আছেন, তাই হয়তো এ দিকে ঠিকমতো খেয়াল করেন না। যত গুরুত্বপূর্ণ কাজের মধ্যেই থাকেন না কেন, কথা বলার সময় স্ত্রী বা স্বামীর দিকে তাকিয়ে কথা বলুন। এতে সে মনে করবে, আপনি তাঁকে গুরুত্ব দিচ্ছেন, দুজনের মধ্যে ভালোবাসাও বাড়বে।

৬. জীবনের ছোট-বড় যেকোনো সাফল্য বা বিশেষ দিন উদ্‌যাপনে আপনি উদাসীন বা এসবে মনোযোগ কম। তাহলে তো ঘোর বিপদে পড়তে যাচ্ছেন আপনি। বিয়ের পর উদযাপনের অভ্যাস আপনার দাম্পত্য জীবন সুখের হতে সাহায্য করবে। জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী, শুভসংবাদ, সাফল্য, পদোন্নতির মতো বিষয়গুলোতে একসঙ্গে উদযাপনের অভ্যাস করুন।

৭. নিজের সঙ্গী সম্পর্কে অন্য কাউকে নেতিবাচক কথা বলবেন না। সঙ্গীকে নিয়ে যদি কারও সঙ্গে আলোচনা করতেই হয়, সেখানে তার সম্পর্কে অসম্মানজনক শব্দ ব্যবহার করবেন না। বিয়ের পর এ অভ্যাস আপনাকে বিচ্ছেদের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

৮. আপনার সঙ্গী যখন কথা বলছে, মাঝপথে তাকে থামিয়ে দেবেন না। তাকে পুরো কথা শেষ করতে দিন। এরপর নিজের বক্তব্য তুলে ধরুন। কথা বলার সময় থামিয়ে দেওয়ার অভ্যাস খুব খারাপ।

সূত্র: Rtv News

সর্বশেষ: