রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

খাওয়ার পর ঘুমানোর সুযোগ রয়েছে এই রেস্তোরাঁয়

খাওয়ার পর ঘুমানোর সুযোগ রয়েছে এই রেস্তোরাঁয়

কথায় বলে, মানুষ নাকি খেতে দিলে শুতে চায়। অবশ্য খাওয়ার সঙ্গে ঘুমের সম্পর্ক বেশ পুরনো। বিশেষ করে দুপুরে ভাত খাওয়ার পর ঘুমে জড়িয়ে আসে অনেকের চোখ। তবে কাজের চাপে তা বেশিরভাগ সময়ই সম্ভব হয় না। 

আচ্ছা, ধরুন আপনি কোনো রেস্তরাঁয় খেতে গেলেন। খাওয়ার পরই খুব ঘুম পেল। পাশে থাকা বিছানায় কিছুক্ষণের জন্য এলিয়ে দিলেন গা। এমনটা হলে কিন্তু ভালোই হতো তাই না? ঘুমপাগলদের কথা বিবেচনা করে সত্যিই এমন রেস্তোরাঁ তৈরি করা হয়েছে।

সম্প্রতি টুইটারে এমন একটি রেস্তোরাঁর ঠিকানা ভাইরাল হয়েছে। যেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে আপনি লম্বা ঘুম দিতে পারবেন। ভাবছেন কোথায় এই রেস্তোরাঁ? 

জর্ডানের রাজধানী আম্মানে রয়েছে এমন রেস্তোরাঁ। নাম ‘মোয়াব’। ‘খাওয়া-দাওয়ার পর ঘুম’ —এই ব্যাপারটিকে কাজে লাগিয়ে ব্যবসা করছে মোয়াব। যদিও তাদের এমন আয়োজনের পিছনে রয়েছে অন্য কারণ।

মধ্য এশিয়ার দেশ জর্ডানে অবস্থিত এই রেস্তোরাঁয় পাওয়া যায় ‘মানসাফ’ নামের একটি খাবার। এটি জর্ডানের জাতীয় খাবার। ‘মানসাফ’ বেশ ভারী খাবার। ঘি, ভেড়ার মাংস দিয়ে পদটি তৈরি হয়। পরিবেশন করা হয় দই, ভাত দিয়ে। এই খাবার খাওয়ার পর শরীরকে বিশ্রাম দেওয়া জরুরি। মানসাফ খাওয়ার পর ঘুমানো জরুরি। না ঘুমালে মানসাফের খাওয়ার সুফল মিলবে না। 

রেস্তোরাঁয় এসে গ্রাহকরা যাতে মানসাফ উপভোগ করে খেতে পারেন তারজন্যই ঘুমনোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। রেস্তোরাঁর মধ্যে রয়েছে বিছানা। এ প্রসঙ্গে রেস্তোরাঁর মালিক মুসাব মুবেদিন জানান, বিছানাটা রসিকতা করেই রেস্তোরাঁয় রাখা হয়েছে। যদিও এই পরামর্শ তাকে দিয়েছিলেন রেস্তোরাঁয় আসা গ্রাহকরাই। ডিনার শেষে যাতে রেস্তোরাঁতেই ঘুমনো যায়, তার জন্য রেস্তোরাঁয় রাখা রয়েছে বিছানা।

জর্ডানের জাতীয় খাবার হওয়ায় দেশের বিভিন্ন রেস্তোরাঁতে মানসাফ পাওয়া যায়। কিন্তু মানসাফ খাওয়ার পর ঘুমনোর ব্যবস্থা নেই কোথাও। তবে, মোয়াবে যদি আপনি মানসাফ খান, সহজেই ঘুমানোর সুযোগ পাবেন আপনি। আর এর জন্যই গ্রাহকের ভিড় লেগে থাকে মোয়াবে।

দৈনিক বগুড়া

সর্বশেষ: